What happens to Women when they suffer from Domestic Violence?

আমি কানাডায় যেখানে থাকি সেটা ইউনিভার্সিটি এলাকা, যেটা downtown এর কাছে। বিদেশে আমরা যেরকম সারি সারি একই ডিজাইন এর বাড়ি দেখি এই এলাকা টা সেরকম না। যেহেতু ইউনিভার্সিটি এই এলাকায়, এটা city এর একটা hub বলা যায়। student সহ এখানে সব ধরনের মানুষের বসবাস; কোলাহলময় একটা পরিবেশ যেটা মানসিক স্বাস্হ্যের জন্য খুব ভাল। ঝামেলা হল বখাটে type মানুষও এখানে একটু বেশি। Homeless দের সাথে police এর দুই একটা টুকটাক সংঘর্ষ প্রায়ই চোখে পড়ে, কিন্তু severe কিছু না। যে ঘটনা টা বলতে চাচ্ছি সেটা বেশ আগের, এখন আমি আর ওখানে থাকিনা।
আমার আগের বাসায় আমার ফ্লোরেই একটা অদ্ভুত ধরনের লোক ছিল।বিশাল লম্বা, চওড়া, তাগড়া, জোয়ান দানবের মত। লোহা লককড় সমৃদ্ধ কিমভুত কিমাকার তার বেশভুষা। আমি ওঁকে প্রায়ই বান্ধবী দের নিয়ে বাসায় আসতে যাইতে দেখতাম। প্রথমে ভাবছি একজনই, পরে খেয়াল করছি বেশ কয়েকজন(!!!!!!!). যাইহোক একদিন বিকালে হুলস্থূল চিৎকার শুনলাম অনেকক্ষন। কারন schedule mismatch হয়ে গেছে (!!!!!!!). ঝগড়ার এক পর্যায়ে দেখলাম লোকটা সাইকেল নিয়ে বের হয়ে গেল (আমার ঘর থেকে সামনের রাস্তা দেখা যাইতো)। এরপর খাওয়া দাওয়া শেষ করে, ঘুম পাড়ায় pc তে কাজে বসবো, রাত তখন ৯/১০ টা। আবার শুনতেছি মেয়েটা রাস্তায়, হঠাৎ বলল here here. লাইট বন্ধ করে একটু খেয়াল করলাম কাহিনি কি। আমি গাড়িটা আসলে অনেকক্ষন ধরে park করা দেখছি। ছেলেটা গেট খুলে সাইকেল ঢুকাতে ঢুকাতেই, police গাড়ি থেকে বের হয়ে আসলো, ও দৌড়টা দিতে পারেনাই। মেয়েটা একটু দুরে অন্ধকারে দাঁড়ানো ছিল দেখে বুঝতেও পারেনাই। এরপর কতক্ষন সাইকেলরে shield বানায় এদিক ওদিক চক্কর দিল।কিন্তু police দুইদিক থেকে এসে সাইকেল লাথি দিয়ে ওঁকে ধরে ফেললো। নিয়ম হল, ও যদি Arrest এ help না করে, ওর কাছে arms থাকুক বা না থাকুক ওদের protocol follow করতে বলা হয়। মানসিক শক্তি দুর্বল করার একটা ব্যাপার আছে। লোকটাকে শোয়াইতে গিয়ে বেহাল অবস্থা। একে তো লোহালককড়, তার উপর threat দিচ্ছে – I know martial arts, I have black belts , bla bla.
দুইজন মিলে শোয়ানোর পর অনেকক্ষন ধরে তাকে ঠাসাঠাসি চলল। ও যত নড়ে, police তত ঠাসে। George Floyd এর মাথা ছিল concrete এর উপরে, এর টা ছিল ঘাসের উপরে (ছবিতে লাইট পোস্ট এর কাছে), এছাড়া কানাডিয়ান police এর reputation so far ভালোই. যাইহোক একপর্যায়ে যখন sorry বলে কান্না শুরু করলো তখন হাতকড়া পড়াইলো। এরপর ওঁকে গাড়িতে ওঠানোর পরে মেয়েটার সাথে কথা বলল। একদম আমার জানালা থেকে ৩/৪ ফিট দুরে। মোটামোটি শোনা যাচ্ছে, বাকিটা body language এ বুঝলাম। মেয়েটা বলল – ছেলেটা ধাক্কা দিয়ে সরায় দিছে কয়েকবার, body তে severe কোন damage নাই, cheating সন্দেহ হচ্ছে, কিন্তু মেয়েটা কাউকে physically trace করেনি/পারেনি। কেন ধাক্কা দিছে, কারন ছেলেটা phone চেক করতে দিচ্ছিল না। যাইহোক, পুরা ঘটনা টা বললাম, কারন যেরকম ভয়ংকর ভাবে ধরলো তাতে আমি ভাবছি, এই পোলার জেল/ফাঁস নিশ্চিত।
পরেরদিন বিকালে আমি মেয়েকে নিয়ে ঢুকার সময় দেখি তিনি আরেকজন বান্ধবীর সাথে গেটের সামনে দাঁড়ায় দাঁড়ায় প্রফুল্ল চিত্তে গনজিকা সেবন করছেন (তখন legal)। পুরা আবুল সাজলাম। ঘাটাঘাটি করলাম একটু। এখানে ছেলেটা যেসব কারনে ছাড়া পাইছে-

  1. কোন bodily harm মেয়েটা দেখাইতে পারেনাই।
  2. মেয়েটা phone দেখতে চাইছে, এটা privacy breach. মেয়েটার fault. Applicable for both.
  3. ছেলেটা ঘর থেকে বের হয়ে গেছে, ঘরটা ছেলের। ছেলেটা ঘরেই ছিলনা যখন, তখন police কে মেয়েটা কি বলে বাসায় ডাকছে এটা বুঝিনাই।
  4. So, মেয়েটা যত exaggerated করে বলছে ঘটনা এত severe না।
    এরকম হলে Police/system পরবর্তীতে কি কি action নেয় –
  5. একটা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য no contact order দেয়। ছেলেটা মেয়ের বাসার আশেপাশেও যাইতে পারবেনা।
  6. এরপরে court date দেয়, অপরাধের তীব্রতা অনুযায়ি শাস্তি। severe bodily damage না হলে কিছু court order (peace bond, restraining order etc) দেয়। এখানে বলা হয় good behaviour এ থাকতে হবে। একজন supervisor কে report করতে হবে, alcoholic হলে treatment/ rehab, counselling, therapy নিতেই হবে।একসাথে/আলাদা থাকতে পারবে। country এর boarder cross করতে পারবেনা।
  7. যদি আগে থেকে চাকরি থাকে তাহলে অনেক সময় ঝামেলা হয়না, আবার সব চাকরিতে background check লাগেওনা।
  8. এরকম ঘটনা ২/৩ বার হলে police একইরকমভাবে নিয়ে যাবে, ছেড়েও দিবে. Court order এ বলা থাকে, যে আবার হলে punishment নিশ্চিত। ব্যাপারটা তা না। Bodily harm proof করতেই হবে।
  9. এই পর্যায়ে যাকে police ধরতেছে, সে আইনের ফাঁক বুঝে গেছে। এরপর, সেও বলবে যে সে victim. ঘরে তো cc camera নাই। কে সত্য বলতেছে কিভাবে বুঝবে? Police দুজন কেই নিয়ে যেতে পারে তখন।
  10. এরকম case এ separation এর suggestion দেয়া হয়। বাঙালী মেয়েদের পিছুটান একটু বেশি কাজ করে। বিদেশীদের যে একদম কাজ করেনা তা না। কিন্তু law এদের separate হতে বাধ্য করে। কারন মেয়েটারও ফেসে যাওয়ার chance, বাচ্চা থাকলে আরো জটিল।দুজন কে নিয়ে গেলে বাচ্চার কি হবে?
  11. এই separation মানে divorce না। ওরা আলাদা থাকবে এক বছর, তারপর divorce file করতে পারবে। legally তখন দুইজনের দুইটা address এ থাকতেই হবে। divorce final এর পর/সাথে সাথে আসবে বাচ্চার custody. যার উকিল যত ঝুনা, যে যত বেশি টাকা দিয়ে ঝুনা উকিল রাখবে সে তত কম ধরা খাবে। (financial, baby এর custody এসব ব্যাপারে)।
  12. এই একবছর সময় দেয়া হয় যে couple counseling অথবা কোনভাবে work out করে কিনা। Financial, insurance সহ সব ধরনের settlement, এগুলোও যাতে যথেষ্ট সময় নিয়ে করা যায়।work out না করলে done.
  13. Canada তে বাচ্চাদের সাথে abusive behaviour খুব সাংঘাতিক।তদন্তের time নাই। ল্যাদা বাচ্চা একবার যদি বলে লাঠি দিয়ে মারছে, একবার chance দিবে। social worker আসবে। ওরা solve করার try করবে, লম্বা সময় নিয়ে connected থেকে। ওরা খালি হাতে এই বিচছুবীহিনির ছাপার পরে মৃদু চড় থাপ্পড় কিভাবে দিতে হয় technically শিখাবে। এদিকে ওদিক হলে ওরাই police আনবে. (এই আইন অনুযায়ি তামিমার মা canadian law এর আওতায় পড়েন)।
    যাইহোক, আমাদের বাংলাদেশের পরিপ্রক্ষিতে কি হয়-
  14. Transition period মাএ ৩ মাস। কোন party কাউকে সঠিক তথ্য দিয়ে সাহায্য করেনা।
  15. No separation stage. আগে divorce file, তারপর ৩ টা হাজিরার date দেয়া হয়।আসামির হাজিরা type না। আসল উদ্দেশ্য Mutual করানো। না হলে ৩ মাস পর এমনেই done.
  16. এই transition phase টা যেহেতু কম। একটা emotional ups and down থাকেই।এসময় তাদের একসাথে দেখা গেলে বিশাল পাপ হয়, সমাজের চোখে। যেখানে এতে শরীয়তের কোন বাঁধা নাই। আবার divorce হয়েই গেলে, সমাজ বলবে শেষ চেষ্টাটাও করলা না। আরে বাবা ওই যে একসাথে দেখছো, এইটাই শেষ চেষ্টা ছিল, যা নিয়ে তোমরা ছি ছি করতেছ।তামিমার ব্যাপার টা একটু এরকম।
    আমাদের দেশের মেয়েদের পিছুটান এবং আর্থ সামাজিক অবস্থার পরিপ্রক্ষিতে এত solid decision নেয়া সম্ভব হয় না। এই সময় সে যায় আত্মীয় স্বজন, community এর কাছে সালিশ মিমাংসার জন্য।
    Sensible যে response টা পায় সেটা হল – মানুষ clearly বলে দেয়, যে তারা simply involve হতে চাচ্ছেনা। দুইটা কারনে –
  17. যদি মিলে যাও তাহলে ওরা enemy হবে।
  18. Divorce হওয়ার পর খারাপ লাগলেও ওরা enemy হবে।
    আবাল মার্কা এবং মারাত্মক ভুল যে response গুলি আসে-
  19. গরীব হলে – চাপায় যাও, শিক্ষিত হলে – আরে কি সব বল, সব overthinking. Depression আছে তোমার,ডাক্তার দেখাও।
  20. বাচ্চা নাও। একটাতে হবেনা, ১০ টা নাও।
  21. এক হাতে তালি বাজেনা, তুমিওতো মাঝে মাঝে চিৎকার কর শুনি।
  22. মারুক, জামাই লম্বা আর ফরসা। পরের জামাই কালো হলে, বাচ্চাও কালো হবে।
  23. বাচ্চার বাপ চোর, ডাকাত, লুইচচা হলে- চাপায় যাও। মেয়ে বাচ্চা বড় হলে বিয়ে হবেনা।
  24. Divorce নিবা- বাচচাকে দিয়ে দাও, নাইলে ভালো বিয়ে হবেনা।
  25. বাচ্চা সহ এত রংঢং করবানা। এগুলা দেখলে মানুষ আর বিয়ে করবেনা।face book এ বাচ্চার এত ছবি দিওনা।
    মহাভুল যেগুলো হয়-
  26. শিক্ষিত সমাজে domestic abuse নিয়ে কথা বলা অচছুত একটা ব্যাপার। মেয়েটার জন্য মুখ খোলা খুব tough. কেউ দায়ভার নিবেনা।
  27. এটার extreme dark side হলো – একজন abusive partner এটার chance নেয় খুব জঘন্য ভাবে। They turn into a pathological liar. খুবই efficient way তে এরা two face maintain করে এবং Victim কেও বাধ্য করে. Drawing room এ guest বসে থাকলে ভিতরে গিয়ে একজন মারবে, একজন মাইর খাবে। কিন্তু আবার সামনে এসে দুজনই হাসিমুখে কথা বলবে।
  28. Victim যদি বড় আকারের কিছু বলেই ফেলে। it’s like পৃথিবী ধ্বংস হয়ে গেছে।নিজেদের ভিতরে রাখা উচিত ছিল।
  29. আরে সব মিথ্যা বলতেছে। এতদিন কিছু হইলে টের পাইতাম না। সেদিনও তো দেখলাম Facebook ঢলাঢলি করতে।কি ছ্যাচড়া। এই মিল, এই ঝগড়া।
    একটা জিনিস আমরা কেউ বুঝিনা যে Canada এর মত দেশও একটা দুইটা চড় থাপ্পড়ে গোজামিল দিয়ে মিলায়। সেখানে একটা বাঙালী মেয়ে পৃথিবীর যেখানেই থাকুক সে নিজে কতখানি হজম করে finally voice raise করতেছে।
    For your kind information, pathological liar দের most dark side গুলি হল –
  30. বিয়ের আগে এদের real face বোঝা tough.
    Relationship এ থাকলেও একটা মেয়ে 365 days, 24/7 এদের তো আর পাহারা দিবেনা।
  31. এরা বাবা, মা, ভাইবোন সবাইকে মারে. I repeat সবাইকে। even মাকেও।
  32. বাচ্চার সাথে ভালো হইতে পারে to cover the dark face. Victim mentally disturbed থেকে বাচ্চার সাথে misbehave করে। বাচ্চা হয় নিমকহারাম।
  33. Financially পথে বসায় দিয়ে হঠাৎ একদিন হাওয়া হয়ে যেতে পারে।
  34. Career, education (forged degree), professional space এ দিনের পর দিন cheating চালায় যেতে পারে (regent এর শাহেদ)।
  35. Most common- successful continuation of extra marital affair.
  36. এমন ভাবে emotional manipulate করবে যে lifelong victim এই vicious cycle থেকে বের হতে পারবেনা।
  37. বের হয়ে গেলেও lifelong ক্ষতি করার try করবে পৃথিবীর যে প্রান্তে থাকুক। Example – Jennifer Lopez এর ‘Enough’ movie.
  38. এই pathological liar দের হাঁত থেকে একটা মেয়ে বের হতে পারেনা শুধু মাএ ‘নিজেদের ভিতরে রাখো’ এই pressure এ। চোখের সামনে সব মিথ্যা বানায় বানায় বলবে, victim কিছুই বলতে পারবেনা। সম্পূর্ন মিথ্যা নাটক নিখুঁত ভাবে সাজায় guilt-trip করায় তারপর দিবে মাইর।
  39. এই trauma এর মধ্যে দিয়ে victim যখন যাবে, তখন তার permanent emotional damage হবে।হয়তো এই মাএ একটা থাপ্পড় খাইছে, সেখান থেকে নিজেকে divert করার জন্য social media তে funny কিছু share দিলে – মেয়ে ছ্যাবলা, attention seeking, sympathy gain অথবা indirect প্রেম নিবেদন।
    একটা মেয়ে মরে যাক, তখন খবর হলে সবাই glorify করবে। মুখ খুললে বেঁচে থাকার অধিকার নাই। এটা কেউ বুঝতে চায়না, যে মেয়েটা মুখ খুলছে মানে সে ওই vicious cycle থেকে 90% বের হয়ে গেছে; বাকিটা শুধু technical step যেটা ও নিজেই deal করতে পারবে। বলতেছে মানে ও নিজেই ফেরার পথ বন্ধ করে দিতে চাচ্ছে। না আমাদের সব কিছু ঢাকতেই হবে, better মরে গেলে RIP দিয়ে Facebook flooded বানায় celebrate করা ভাল। সমাজ একজন Victim কে depressed অথবা পাগল বলতে রাজি আছে, চাপায় যাও বলতে পারবে কিন্তু criminal কে criminal বলতে এদের রুচিতে বাঁধে। কি অদ্ভুত।
    নারীর জীবন হোক মানসিক দূষণ মুক্ত।
    Happy women’s day.

About the Author:

Developer Herwill

Developer Herwill

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *